শনিবার, ২৮শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১০ই এপ্রিল, ২০২০ ইং
শিরোনাম
  • **আজ পবিত্র শবেবরাত** দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৩ জনের মৃত্যুর কথা নিশ্চিত করেছে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান- আইইডিসিআর। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট ২০ জনের প্রাণহানি ঘটলো**ইয়েমেনে যুদ্ধবিরতির ঘোষণা দিয়েছে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট। বৃহস্পতিবার থেকে এই যুদ্ধ বিরতি কার্যকর হবে বলে জানিয়েছে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটের কর্মকর্তারা**ব্যাপক হারে মৃত্যুর ঘটনায় মার্কিন পতাকা অর্ধনমিত রাখার নির্দেশ দিয়েছেন নিউইয়র্কের গভর্নর ক্যুমো** বঙ্গবন্ধুর খুনি মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আব্দুল মাজেদের প্রাণভিক্ষার আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।ফাঁসি যেকোনো দিন**
শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ৭, ২০২০ ১২:৫৪ পূর্বাহ্ণ
A- A A+ Print

করোনাভাইরাস নিয়ে প্রথম সতর্ক করা চিকিৎসক লি ওয়েনলিয়াং এর মৃত্যু

চীনের করোনাভাইরাস ২০১৯ এনসিওভি সম্পর্কে প্রথম যে চিকিৎসক সতর্ক করেছিলেন, তিনি নিজেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে শেষ পর্যন্ত মারা গেছেন।

আন্তর্জাতিক বিভিন্ন মিডিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ৩৪ বছর বয়সী লি'র মৃত্যু সংবাদ নিশ্চিত করে বৃহস্পতিবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা একটি টুইট করেছে। এতে বলা হয়, 'আমরা গভীর দুঃখের সঙ্গে লি'র মৃত্যু সংবাদ জানাচ্ছি। নভেলা করোনাভাইরাস নিয়ে তিনি যে কাজ করে গেছেন এজন্য তাকে আমাদের সবার স্মরণ রাখা উচিত।' খবর সিএনএনের।

লি ওয়েনলিয়াং নামের ওই চক্ষু বিশেষজ্ঞ ২০১৯ এনসিওভি’তে আক্রান্ত হওয়ার পর স্থানীয় একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। লি’কে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র বা আইসিইউ তিনি রাখা হয়েছিলো।

সবার আগে এই প্রাণঘাতি নোভেল বা অভূতপূর্ব ভাইরাস ২০১৯ এনসিওভির প্রার্দুভাবের বিষয়টি টের পেয়েছিলেন ডা. লি। তিনি এর ভয়াবহতাও বুঝতে পেরেছিলেন। চীনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ওয়েবোতে দেয়া এক পোস্টে এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছিলেন তিনি।

চিকিৎসক লি গত বছরের ডিসেম্বর মাসে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব নিয়ে কাজ করছিলেন। সে সময় তিনি সাতজনের মধ্যে এই ভাইরাসের সংক্রমণ দেখতে পান। প্রথমে লি ভেবেছিলেন, এটি সার্স ভাইরাস এবং এর সংক্রমণ উহানের হুয়ানান সামুদ্রিক খাবারের বাজার থেকে হয়েছে। ভাইরাসে আক্রান্তদের তার হাসপাতালের কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়।

৩০ ডিসেম্বর লি তার ফেলো চিকিৎসকদের একটি চ্যাট গ্রুপে দেওয়া বার্তায় করোনাভাইরাস নিয়ে সতর্ক করেন ও এর সংক্রমণ থেকে বাঁচতে প্রতিরোধমূলক কাপড় পরার পরামর্শ দেন। লি তখনও জানতেন না যে, এই করোনাভাইরাস একেবারেই নতুন।ডিসেম্বর মাসে করোনাভাইরাস নিয়ে কাজ করার সময় পাবলিক সিকিউরিটি ব্যুরোর কর্মকর্তার সঙ্গে সফর করেন লি। তারা তাকে একটি চিঠিতে সই করতে বলেন। ওই চিঠিতে লি'র বিরুদ্ধে মিথ্যা মন্তব্য করার অভিযোগ করে বলা হয়, এ ধরনের ভাইরাসের সংক্রমণের কথা বলে তিনি সমাজের ক্ষতি করছেন। গুজব ছড়ানোর অভিযোগে ওই সময় যে আটজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল লি তাদের মধ্যে একজন।

‘অনলাইনে গুজব ছড়ানো ও সামাজিক শৃঙ্খলা ব্যাহত করার’ অভিযোগে গত ৩ জানুয়ারি স্থানীয় পুলিশ তাকে থানায় তলব করে। ‘বেআইনি’ কাজের কথা স্বীকার করে এবং আর কোনো আইনবিরোধী কাজ না করার অঙ্গীকার দিয়ে রেহাই পান তিনি। তলবের এক ঘণ্টা পর থানা থেকে বের হয়ে আসতে সক্ষম হয়েছিলেন লি।

পুলিশের কাছ থেকে ছাড়া পাওয়ার পর উহান সেন্ট্রাল হাসপাতালে কাজে ফেরেন লি। এরপর ১০ জানুয়ারি ২০১৯ এনসিওভি’তে আক্রান্ত এক গ্লুকোমা রোগীর অপারেশন করার সময় তিনি নিজেই এ রোগের শিকার হন।

চীনের সরকারি দৈনিক গ্লোবাল টাইমস আজ(বৃহস্পতিবার) এক টুইট বার্তায় জানায় যে ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর প্রায় এক মাস পরে মারা গেছেন ডা. লি।

হাসপাতালের শয্যা থেকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, চীনের কর্মকর্তারা যদি আগে ভাগে এ ভাইরাসের মহামারি নিয়ে তথ্যাদি প্রকাশ করতেন তা হলে পরিস্থিতি আরও ভাল হতো। তিনি আরও বলেন, আরও খোলামেলা এবং স্বচ্ছতা থাকা উচিত ছিল।

Comments

Comments!

 Natunsokal.com

করোনাভাইরাস নিয়ে প্রথম সতর্ক করা চিকিৎসক লি ওয়েনলিয়াং এর মৃত্যু

শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ৭, ২০২০ ১২:৫৪ পূর্বাহ্ণ

চীনের করোনাভাইরাস ২০১৯ এনসিওভি সম্পর্কে প্রথম যে চিকিৎসক সতর্ক করেছিলেন, তিনি নিজেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে শেষ পর্যন্ত মারা গেছেন।

আন্তর্জাতিক বিভিন্ন মিডিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ৩৪ বছর বয়সী লি’র মৃত্যু সংবাদ নিশ্চিত করে বৃহস্পতিবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা একটি টুইট করেছে। এতে বলা হয়, ‘আমরা গভীর দুঃখের সঙ্গে লি’র মৃত্যু সংবাদ জানাচ্ছি। নভেলা করোনাভাইরাস নিয়ে তিনি যে কাজ করে গেছেন এজন্য তাকে আমাদের সবার স্মরণ রাখা উচিত।’ খবর সিএনএনের।

লি ওয়েনলিয়াং নামের ওই চক্ষু বিশেষজ্ঞ ২০১৯ এনসিওভি’তে আক্রান্ত হওয়ার পর স্থানীয় একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। লি’কে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র বা আইসিইউ তিনি রাখা হয়েছিলো।

সবার আগে এই প্রাণঘাতি নোভেল বা অভূতপূর্ব ভাইরাস ২০১৯ এনসিওভির প্রার্দুভাবের বিষয়টি টের পেয়েছিলেন ডা. লি। তিনি এর ভয়াবহতাও বুঝতে পেরেছিলেন। চীনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ওয়েবোতে দেয়া এক পোস্টে এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছিলেন তিনি।

চিকিৎসক লি গত বছরের ডিসেম্বর মাসে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব নিয়ে কাজ করছিলেন। সে সময় তিনি সাতজনের মধ্যে এই ভাইরাসের সংক্রমণ দেখতে পান। প্রথমে লি ভেবেছিলেন, এটি সার্স ভাইরাস এবং এর সংক্রমণ উহানের হুয়ানান সামুদ্রিক খাবারের বাজার থেকে হয়েছে। ভাইরাসে আক্রান্তদের তার হাসপাতালের কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়।

৩০ ডিসেম্বর লি তার ফেলো চিকিৎসকদের একটি চ্যাট গ্রুপে দেওয়া বার্তায় করোনাভাইরাস নিয়ে সতর্ক করেন ও এর সংক্রমণ থেকে বাঁচতে প্রতিরোধমূলক কাপড় পরার পরামর্শ দেন। লি তখনও জানতেন না যে, এই করোনাভাইরাস একেবারেই নতুন।ডিসেম্বর মাসে করোনাভাইরাস নিয়ে কাজ করার সময় পাবলিক সিকিউরিটি ব্যুরোর কর্মকর্তার সঙ্গে সফর করেন লি। তারা তাকে একটি চিঠিতে সই করতে বলেন। ওই চিঠিতে লি’র বিরুদ্ধে মিথ্যা মন্তব্য করার অভিযোগ করে বলা হয়, এ ধরনের ভাইরাসের সংক্রমণের কথা বলে তিনি সমাজের ক্ষতি করছেন। গুজব ছড়ানোর অভিযোগে ওই সময় যে আটজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল লি তাদের মধ্যে একজন।

‘অনলাইনে গুজব ছড়ানো ও সামাজিক শৃঙ্খলা ব্যাহত করার’ অভিযোগে গত ৩ জানুয়ারি স্থানীয় পুলিশ তাকে থানায় তলব করে। ‘বেআইনি’ কাজের কথা স্বীকার করে এবং আর কোনো আইনবিরোধী কাজ না করার অঙ্গীকার দিয়ে রেহাই পান তিনি। তলবের এক ঘণ্টা পর থানা থেকে বের হয়ে আসতে সক্ষম হয়েছিলেন লি।

পুলিশের কাছ থেকে ছাড়া পাওয়ার পর উহান সেন্ট্রাল হাসপাতালে কাজে ফেরেন লি। এরপর ১০ জানুয়ারি ২০১৯ এনসিওভি’তে আক্রান্ত এক গ্লুকোমা রোগীর অপারেশন করার সময় তিনি নিজেই এ রোগের শিকার হন।

চীনের সরকারি দৈনিক গ্লোবাল টাইমস আজ(বৃহস্পতিবার) এক টুইট বার্তায় জানায় যে ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর প্রায় এক মাস পরে মারা গেছেন ডা. লি।

হাসপাতালের শয্যা থেকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, চীনের কর্মকর্তারা যদি আগে ভাগে এ ভাইরাসের মহামারি নিয়ে তথ্যাদি প্রকাশ করতেন তা হলে পরিস্থিতি আরও ভাল হতো। তিনি আরও বলেন, আরও খোলামেলা এবং স্বচ্ছতা থাকা উচিত ছিল।

Please follow and like us:
error0

Comments

comments

X
error