শনিবার, ২৮শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১০ই এপ্রিল, ২০২০ ইং
শিরোনাম
  • **আজ পবিত্র শবেবরাত** দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৩ জনের মৃত্যুর কথা নিশ্চিত করেছে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান- আইইডিসিআর। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট ২০ জনের প্রাণহানি ঘটলো**ইয়েমেনে যুদ্ধবিরতির ঘোষণা দিয়েছে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট। বৃহস্পতিবার থেকে এই যুদ্ধ বিরতি কার্যকর হবে বলে জানিয়েছে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটের কর্মকর্তারা**ব্যাপক হারে মৃত্যুর ঘটনায় মার্কিন পতাকা অর্ধনমিত রাখার নির্দেশ দিয়েছেন নিউইয়র্কের গভর্নর ক্যুমো** বঙ্গবন্ধুর খুনি মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আব্দুল মাজেদের প্রাণভিক্ষার আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।ফাঁসি যেকোনো দিন**
শনিবার, মার্চ ২১, ২০২০ ১:৩৩ অপরাহ্ণ
A- A A+ Print

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত্র হয়ে নিউইয়র্কে দুই বাংলাদেশীর মৃত্যু

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত্র হয়ে নিউইয়র্কে দুই বাংলাদেশীর মৃত্যুর খবর জানা গেছে। এরা দু‘জনেই পুরুষ। এস্টোরিয়া এলাকার বাসিন্দা ষাটোর্ধ্ব মোতাহার হোসেন গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে এই মরণব্যাধীতে ভুগে মারা যান। হার্টের সমস্যা সহ বিবিধ রোগে আক্রান্ত ছিলেন মোতাহার হোসেন। কুইন্সের এলমহার্স্ট হাসপাতালে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি।অপর ব্যক্তির নাম আলী। তিনি কুইন্সের উডসাইডের বাসিন্দা। তার সম্পর্কে তেমন কোন তথ্য পাওয়া যায়নি। ষাটের নীচে তার বয়স এবং অন্যান্য জটিল রোগেও ভুছিলেন তনিি এটুকুই জানা গেছে। তার পরিবারের সাথে অল্প বিস্তর পরিচিত একজন জানিয়েছেন মৃতের পরিবার জানাতে চান না তিনি করোনায় মারা গেছেন, কারন তাদের ভয় তাহলে তার স্বাভাবিক জানাজা সম্পন্ন করতে পারবেন না।
এছাড়া ভার্জিনিয়া স্টেটেও এক বাংলাদেশী নারী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন বলে অসমীর্থত সূত্রে জানা গেছে। তার ডাক নাম লোপা। তার সম্পর্কে বিস্তারিত আর কিছু জানা যায়নি।

নিউইয়র্কের রাজশাহী বিশ্বিবিদ্যালয় এলামনাই এসোসিয়েশন ইউএসএ’র সাংগঠনিক সম্পাদক জসীম উদ্দিন, তার স্ত্রী ও দুই পুত্রের কোরনা ভাইরাসে আক্রান্ত হবার খবর পাওয়া গেছে। তারা এলমহার্স্ট হাসপাতালে ভর্তি হেয় চিকিৎসা নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

এদিকে করোনা ভাইরাস এখন নিউইয়র্কে বাংলাদেশী কমিউনিটিতে রীতিমত আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে। অসংখ্য বাংলাদেশীর এই ভাইরাসে আক্রান্ত হবার খবর লোকমুখে শোনা গেলেও ঠিক কতজন বাংলাদেশী এতে আক্রান্ত হয়েছেন তার সঠিক পরিসংখ্যান পাওয়া যাচ্ছে না। এর কারন হচ্ছে যারা আক্রান্ত হচ্ছেন তাদের পরিবার বিষয়টি লুকিয়ে রাখতে চাচ্ছেন। তারা জানতে দিচ্ছেন না যে তাদের পরিবারের কেউ এতে আক্রান্ত হয়েছেন। আশেপাশের প্রতিবেশীদের কাছ থেকে কোন কোন ব্যক্তির আক্রান্ত হবার খবর জানা যাচ্ছে।

এমনভাবেই জানা গেছে যে, কুইন্সের বাঙ্গালী অধ্যুষিত উডসাইডে একটি পরিবারের চারজনকে স্বাস্থ্যকর্মীরা উঠিয়ে নিয়ে গেছে তাদের দেহে করোনা বাইরাসের অস্তিত্ব পাবার কারনে।

একই রকম ঘটনা ঘটেছে কুইন্সের সাটফিনেও। এখানেও একই পরিবারের তিনজনকে স্বাস্থ্যকর্মীরা উঠিয়ে নিয়ে গেছেন এবং পরিজনকে তাদের সাথে আর যোগাযোগ করতে নিষেধ করে গেছেন।

উডসাইডে আরেকজন বাংলাদেশী নারীর দেহেও করোনা ভাইরাসের অস্তত্ব পাওয়অে গছে। তার ডাকনাম নীপা। বয়স ৪২।

Comments

Comments!

 Natunsokal.com

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত্র হয়ে নিউইয়র্কে দুই বাংলাদেশীর মৃত্যু

শনিবার, মার্চ ২১, ২০২০ ১:৩৩ অপরাহ্ণ

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত্র হয়ে নিউইয়র্কে দুই বাংলাদেশীর মৃত্যুর খবর জানা গেছে। এরা দু‘জনেই পুরুষ। এস্টোরিয়া এলাকার বাসিন্দা ষাটোর্ধ্ব মোতাহার হোসেন গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে এই মরণব্যাধীতে ভুগে মারা যান। হার্টের সমস্যা সহ বিবিধ রোগে আক্রান্ত ছিলেন মোতাহার হোসেন। কুইন্সের এলমহার্স্ট হাসপাতালে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি।অপর ব্যক্তির নাম আলী। তিনি কুইন্সের উডসাইডের বাসিন্দা। তার সম্পর্কে তেমন কোন তথ্য পাওয়া যায়নি। ষাটের নীচে তার বয়স এবং অন্যান্য জটিল রোগেও ভুছিলেন তনিি এটুকুই জানা গেছে। তার পরিবারের সাথে অল্প বিস্তর পরিচিত একজন জানিয়েছেন মৃতের পরিবার জানাতে চান না তিনি করোনায় মারা গেছেন, কারন তাদের ভয় তাহলে তার স্বাভাবিক জানাজা সম্পন্ন করতে পারবেন না।
এছাড়া ভার্জিনিয়া স্টেটেও এক বাংলাদেশী নারী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন বলে অসমীর্থত সূত্রে জানা গেছে। তার ডাক নাম লোপা। তার সম্পর্কে বিস্তারিত আর কিছু জানা যায়নি।

নিউইয়র্কের রাজশাহী বিশ্বিবিদ্যালয় এলামনাই এসোসিয়েশন ইউএসএ’র সাংগঠনিক সম্পাদক জসীম উদ্দিন, তার স্ত্রী ও দুই পুত্রের কোরনা ভাইরাসে আক্রান্ত হবার খবর পাওয়া গেছে। তারা এলমহার্স্ট হাসপাতালে ভর্তি হেয় চিকিৎসা নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

এদিকে করোনা ভাইরাস এখন নিউইয়র্কে বাংলাদেশী কমিউনিটিতে রীতিমত আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে। অসংখ্য বাংলাদেশীর এই ভাইরাসে আক্রান্ত হবার খবর লোকমুখে শোনা গেলেও ঠিক কতজন বাংলাদেশী এতে আক্রান্ত হয়েছেন তার সঠিক পরিসংখ্যান পাওয়া যাচ্ছে না। এর কারন হচ্ছে যারা আক্রান্ত হচ্ছেন তাদের পরিবার বিষয়টি লুকিয়ে রাখতে চাচ্ছেন। তারা জানতে দিচ্ছেন না যে তাদের পরিবারের কেউ এতে আক্রান্ত হয়েছেন। আশেপাশের প্রতিবেশীদের কাছ থেকে কোন কোন ব্যক্তির আক্রান্ত হবার খবর জানা যাচ্ছে।

এমনভাবেই জানা গেছে যে, কুইন্সের বাঙ্গালী অধ্যুষিত উডসাইডে একটি পরিবারের চারজনকে স্বাস্থ্যকর্মীরা উঠিয়ে নিয়ে গেছে তাদের দেহে করোনা বাইরাসের অস্তিত্ব পাবার কারনে।

একই রকম ঘটনা ঘটেছে কুইন্সের সাটফিনেও। এখানেও একই পরিবারের তিনজনকে স্বাস্থ্যকর্মীরা উঠিয়ে নিয়ে গেছেন এবং পরিজনকে তাদের সাথে আর যোগাযোগ করতে নিষেধ করে গেছেন।

উডসাইডে আরেকজন বাংলাদেশী নারীর দেহেও করোনা ভাইরাসের অস্তত্ব পাওয়অে গছে। তার ডাকনাম নীপা। বয়স ৪২।

Please follow and like us:
error0

Comments

comments

X
error