বৃহস্পতিবার, ৮ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২০শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং
শিরোনাম
  • **কাসেম সোলেমানির ঘনিষ্ঠ স্থানীয় কমান্ডার আব্দেলহোসেইন মোজাদ্দামিকে বুধবার তার বাসার সামনে গুলি করে হত্যা করেছে দুই মুখোশধারী**রোহিঙ্গাদের সুরক্ষায় মিয়ানমারকে জরুরি ভিত্তিতে চার দফা অন্তর্বর্তীকালীন পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দিয়েছে ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিস (আইসিজে)** রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সংবিধান আমূল পরিবর্তনের প্রস্তাব প্রাথমিকভাবে সমর্থন করেছে পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ স্টেট দুমা** রুট 19 এর নাম বদলে গভর্নর ফিল মারফি মঙ্গলবার বিল প্যাসক্রেলের নামে সড়ক নামকরণের একটি বিলে স্বাক্ষর করেছেন** প্যাটারসনে মেইন স্ট্রিটে পীষ্ঠ হয়ে ৬১ বছর বয়সী ব্যক্তির মৃত্যু** ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়ালের বিরুদ্ধে হলফনামায় সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে ব্যবস্থা চেয়েছেন অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক**
শুক্রবার, ডিসেম্বর ২৭, ২০১৯ ২:৪১ পূর্বাহ্ণ
A- A A+ Print

সন্তান ভালবাসতে শিখুক প্রকৃতিকে ; স্মার্টফোন নয়

জেগে থাকা সময়ের এক-তৃতীয়াংশই স্মার্টফোন ব্যবহার করছি আমরা। সম্প্রতি এক সমীক্ষায় দেখা গেছে শুধুমাত্র স্মার্টফোনের দিকে তাকিয়ে থেকেই বছরের মোট ৭৫ দিন কেটে যাচ্ছে। বড়রাই নয়, এই অবস্থা থেকে মুক্ত নয় শিশুরাও।

স্মার্টফোন প্রস্তুতকারী সংস্থা ভিভো ও সাইবারমিডিয়ার এক যৌথ জরিপের প্রকাশিত ফলাফল থেকে জানা গেছে, এই সমীক্ষায় অংশ নেওয়া দুই হাজার সদস্যদের অর্ধেকের বেশি সোশ্যাল মিডিয়া বন্ধ করতে অস্বীকার করেছেন। অনেকেই মনে করেন স্মার্টফোন ছাড়া জীবন ধারণ সম্ভব নয়।

বেশিরভাগ শিশুর হাতে ফোন এসে যাচ্ছে স্কুল বয়সেই। এতে করে তারা স্মার্টফোনের ওপর নির্ভরশীল হয়ে যাচ্ছে। যোগাযোগ বা কোনো কিছু জানার আগ্রহ হলে সে ফোনেই সব করে নিচ্ছে। এতে করে শিশুর দূরত্ব বাড়ছে পরিবার ও প্রকৃতির সঙ্গে। যার প্রভাব তার পুরো জীবনে পড়বে বলেই মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।
বিশেষজ্ঞরা বলেন, ইন্টারনেটের যুগের শিশুরা ডিজিটাল ডিভাইস হাতে বড় হচ্ছে। এর ফলে সমাজের কাঠামো পরিবর্তন হয়ে যাচ্ছে। সম্পর্কের সংজ্ঞা বদলে যাচ্ছে। বদলে যাচ্ছে মানুষের আবেগ প্রকাশের উপায়। বেশিরভাগ স্মার্টফোন ব্যবহারকারী শিশু-কিশোরই বন্ধু ও পরিজনদের সঙ্গে ভার্চুয়ালি কথা বলতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে।

এই শিশুরা বাইরে বন্ধুদের সঙ্গে খেলতেও পছন্দ করে না। ফলে তাদের মধ্যে ওবেসিটি বা অতিরিক্ত ওজন বেড়ে যাওয়ার ঝুঁকিও বাড়তে থাকে। সারাক্ষণ স্ক্রিনে তাকিয়ে থাকায় দৃষ্টিশক্তিরও ক্ষতি হতে পারে। এছাড়াও তাদের মনোযোগ ও ধৈর্য কম থাকে।

স্মার্টফোন আমাদের জীবনে যোগাযোগের জন্য প্রয়োজনীয় হলেও এর ব্যবহারে এখন থেকেই রাশ টানতে হবে। বিশেষ করে ছোটদের সামনে। কারণ পরিবারের বড়রা যদি সারাক্ষণ ফোন হাতে থাকেন, তবে স্মার্টফোন থেকে দূরে থাকার পরামর্শ শিশুরা কেন শুনবে?

সুস্থ-সুন্দর-সফল-মানবিক মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে সময় পেলেই শিশু-কিশোরদের প্রকৃতির মাঝে নিয়ে যান। তাদের চারপাশের মানুষের সঙ্গে মেশার সুযোগ করে দিন। ছোট বেলা থেকেই শিশুকে দেশ, মানুষ ও প্রকৃতিকে ভালোবাসতে শেখান।

Comments

Comments!

 Natunsokal.com

সন্তান ভালবাসতে শিখুক প্রকৃতিকে ; স্মার্টফোন নয়

শুক্রবার, ডিসেম্বর ২৭, ২০১৯ ২:৪১ পূর্বাহ্ণ

জেগে থাকা সময়ের এক-তৃতীয়াংশই স্মার্টফোন ব্যবহার করছি আমরা। সম্প্রতি এক সমীক্ষায় দেখা গেছে শুধুমাত্র স্মার্টফোনের দিকে তাকিয়ে থেকেই বছরের মোট ৭৫ দিন কেটে যাচ্ছে। বড়রাই নয়, এই অবস্থা থেকে মুক্ত নয় শিশুরাও।

স্মার্টফোন প্রস্তুতকারী সংস্থা ভিভো ও সাইবারমিডিয়ার এক যৌথ জরিপের প্রকাশিত ফলাফল থেকে জানা গেছে, এই সমীক্ষায় অংশ নেওয়া দুই হাজার সদস্যদের অর্ধেকের বেশি সোশ্যাল মিডিয়া বন্ধ করতে অস্বীকার করেছেন। অনেকেই মনে করেন স্মার্টফোন ছাড়া জীবন ধারণ সম্ভব নয়।

বেশিরভাগ শিশুর হাতে ফোন এসে যাচ্ছে স্কুল বয়সেই। এতে করে তারা স্মার্টফোনের ওপর নির্ভরশীল হয়ে যাচ্ছে। যোগাযোগ বা কোনো কিছু জানার আগ্রহ হলে সে ফোনেই সব করে নিচ্ছে। এতে করে শিশুর দূরত্ব বাড়ছে পরিবার ও প্রকৃতির সঙ্গে। যার প্রভাব তার পুরো জীবনে পড়বে বলেই মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।
বিশেষজ্ঞরা বলেন, ইন্টারনেটের যুগের শিশুরা ডিজিটাল ডিভাইস হাতে বড় হচ্ছে। এর ফলে সমাজের কাঠামো পরিবর্তন হয়ে যাচ্ছে। সম্পর্কের সংজ্ঞা বদলে যাচ্ছে। বদলে যাচ্ছে মানুষের আবেগ প্রকাশের উপায়। বেশিরভাগ স্মার্টফোন ব্যবহারকারী শিশু-কিশোরই বন্ধু ও পরিজনদের সঙ্গে ভার্চুয়ালি কথা বলতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে।

এই শিশুরা বাইরে বন্ধুদের সঙ্গে খেলতেও পছন্দ করে না। ফলে তাদের মধ্যে ওবেসিটি বা অতিরিক্ত ওজন বেড়ে যাওয়ার ঝুঁকিও বাড়তে থাকে। সারাক্ষণ স্ক্রিনে তাকিয়ে থাকায় দৃষ্টিশক্তিরও ক্ষতি হতে পারে। এছাড়াও তাদের মনোযোগ ও ধৈর্য কম থাকে।

স্মার্টফোন আমাদের জীবনে যোগাযোগের জন্য প্রয়োজনীয় হলেও এর ব্যবহারে এখন থেকেই রাশ টানতে হবে। বিশেষ করে ছোটদের সামনে। কারণ পরিবারের বড়রা যদি সারাক্ষণ ফোন হাতে থাকেন, তবে স্মার্টফোন থেকে দূরে থাকার পরামর্শ শিশুরা কেন শুনবে?

সুস্থ-সুন্দর-সফল-মানবিক মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে সময় পেলেই শিশু-কিশোরদের প্রকৃতির মাঝে নিয়ে যান। তাদের চারপাশের মানুষের সঙ্গে মেশার সুযোগ করে দিন। ছোট বেলা থেকেই শিশুকে দেশ, মানুষ ও প্রকৃতিকে ভালোবাসতে শেখান।

Please follow and like us:
error0

Comments

comments

X
error